অপরাধ মূল্যক

মানুষ ভাবতো পুলিশ, পুলিশ ভাবতো দুদক কর্মচারী, আসলে তিনি প্রতারক!

সবার কাছে তিনি পরিচিত পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে। সবাই যেন বিশ্বাস করে এজ’ন্য পুলিশে’র ইউনিফর্ম পড়ে নি’য়মিত ফেসবুকে ছবিও দেন। কখনও বন্দুক হাতে, কখনও ওয়াকি’টকি হাতেও ছবি তু’লেছেন

নিজে’কে পুলিশ প্রমাণে’র জ’ন্য। আবার পুলিশের কাছে তিনি পরিচিত দুদ’ক কর্ম’চারী হিসেবে। কেউবা আবার চেনেন এনএসআ’ই কর্মচারী হিসে’বেও। এসবের কোনোটিই ঠিক নয়। তিনি একজন ‘প্রতা’রক’। প্রতারণার অভিযো’গে পুলিশ তা’কে

আট’ক করেছে। শুক্রবার (১২ নভেম্বর) বিকেলে চুয়াডাঙ্গা থেকে এই প্রতার’ককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার প্রতা’রকের নাম তৌহিদ হোসেন। তিনি চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গাইদঘাট গ্রামের মি’ল্লান হোসেনের ছেলে।

জানা গেছে, তৌহিদ হোসেন দীর্ঘ’দিন ধরেই নিজেকে পুলি’শ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে আস’ছিলেন। এই পরি’চয় দিয়ে তিনি মানু’ষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন। জিজ্ঞাসাবাদে তৌহিদ হোসেন জা’নান, এক নারীকে চু’য়াডাঙ্গা থানার পুলিশ বলে

পরি’চয় দেন তিনি। তাকে বিশ্বাস ক’রানোর জন্যই থানার সামনে ঘোরাফেরা করছিলেন। তৌহিদের বিরুদ্ধে এক নারী প্রতারণার অভিযোগে মাম’লা করেছেন। পুলিশ বাদী হয়ে আরে’কটি মামলা করেছে। চুয়াডাঙ্গা স’দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)

মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘তৌহিদ হোসেন নিজে’কে কখনো পুলিশ কখ’নো এনএসআই হিসেবে পরি’চয় দিয়ে প্রতা’রণা ক’রে থাকেন। প্রতা’রণার সু’বিধার জন্য তিনি ফে’সবুকে এসব ছবি ব্যবহার করে’ন। বিভিন্ন বাহিনীর সদস্য সেজে মূলত টা’কা হাতি’য়ে নেওয়া’ই ছিল তার কাজ। শনিবার তা’কে

চুয়াডাঙ্গা আদালতে সোপর্দ করা হবে।’ চুয়াডাঙ্গা বড় বা’জার থেকে শুক্রবার বিকেলে চুয়া’ডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ তৌহিদ হোসে’নকে আটক করেছে। তার বি’রুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের প্রক্রিয়া’ধীন রয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close