জাতীয়

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করবেন যেভাবে

জাতীয় পরিচয়পত্র রাষ্ট্রের নাগরিক হিসাবে স্বীকৃতির সবচেয়ে মূল্যবান দলিল। রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ভোগ করা ছাড়াও বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা অর্জনের জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র থাকা আবশ্যক। আমাদের দেশে

জাতীয় পরিচয়পত্র প্রকাশনা, মুদ্রণ ও তথ্য ব্যবস্থাপনায় জনগণের অসতর্কতা, অসাবধানতাসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অনিচ্ছাকৃত ভুলের কারণে অনেকেই জাতীয় পরিচয়পত্রে বিভিন্ন ভুলের স্বীকার হন যা পরবর্তীতে সীমাহীন দুর্ভোগের সৃষ্টি করে।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন, ঠিকানা পরিবর্তন, পিতা-মাতার নামের ভুল, জন্ম তারিখ সংশোধনসহ অন্যান্য বিষয়ের ২০টি প্রশ্ন এবং তাদের উত্তর-
কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করবো?
জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের জন্য উপজেলা, থানা অথবা জেলা নির্বাচন অফিসে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। আবেদনের

সাথে সোনালী ব্যাংকে নির্ধারিত ফিস জমা দিয়ে সংশোধনের পক্ষে উপযুক্ত কাগজ-পত্র দাখিল পূর্বক আবেদন করতে হবে।
জাতীয় পরিচয়পত্রে স্বামীর নাম অন্তর্ভুক্ত করতে হলে বিয়ের কাবিন অথবা অন্যান্য প্রমাণসহ স্বামীর জাতীয় পরিচয়পত্রের কপিসহ সংশোধনের আবেদন করতে হবে। স্বামীর ঠিকানা নিজের জাতীয় পরিচয়পত্রে ব্যবহার করতে চাইলে সে বিষয়টিও আবেদনে

উল্লেখ করতে হবে। তালাক বা বিবাহ বিচ্ছেদের পর কিভাবে স্বামী বা স্ত্রীর নাম কর্তন করবো? জাতীয় পরিচয়পত্র থেকে স্বামী বা স্ত্রীর নাম কর্তন করতে চাইলে তালাক বা বিচ্ছেদের পক্ষে প্রমাণ দাখিল পূর্বক আবেদন করতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্রে পেশা পরিবর্তনের নিয়ম কী?

যদিও জাতীয় পরিচয়পত্রে পেশা উল্লেখ থাকে না তবুও আপনি চাইলে তা পরিবর্তন করতে পারবেন। তবে, পেশা পরিবর্তনের জন্য প্রাসঙ্গিক আবেদনের সাথে যুক্ত করা আবশ্যক।
জাতীয় পরিচয়পত্রে ছবি অস্পষ্ট তাই পরিবর্তন করতে চাই, কিভাবে করবো? অধিকাংশ লোকের ছবিই অস্পষ্ট। তবু কেউ যদি পরিবর্তন করতে চায় তাহলে, সরাসরি জাতীয় পরিচয়পত্র

অনুবিভাগে মূল জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে হাজির হয়ে নতুন করে ছবি উঠাতে পারবে। নিজের নাম বা পিতা-মাতার নামের বানান ভুল কিভাবে সংশোধন করবো? নামের বানান বা অংশ বিশেষ পরিবর্তনের জন্য নির্দিষ্ট ফরমে নির্ধারিত ফি পরিশোধ করে আবেদন করতে হবে। আবেদনের সাথে যে সব কাগজ দাখিল করতে হবে তার তালিকা-

১. একাডেমিক সনদ (এসএসসি/এইচএসসি/ বা অন্যান্য)।
২. পিতা/ মাতা বা স্বামী/স্ত্রীর জাতীয় পরিচয়পত্র বা কাবিন নামার কপি।
৩. প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে সম্পাদিত ২০০ টাকা স্ট্যাম্পে নোটারিকৃত হলফনামা।
৪. জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি।
৫. ওয়ারিশান সনদ (বিশেষ ক্ষেত্রে)।
৬. ইউনিয়ন বা সিটি কর্পোরেশন প্রদত্ত নামের প্রত্যয়নপত্র।

জাতীয় পরিচয়পত্রে বর্ণিত ঠিকানা কিভাবে পরিবর্তন বা সংশোধন করবো? ঠিকানা পরিবর্তন সাধারণত দুটি পদ্ধতিতে করা যায়। একই নির্বাচনী এলাকার মধ্যে ঠিকানা পরিবর্তন করতে চাইলে সংশোধনের সাধারণ নিয়মে আবেদন করতে হয়। কিন্তু ভিন্ন নির্বাচনী এলাকার মধ্যে ঠিকানা পরিবর্তন করতে চাইলে নির্ধারিত ফর্ম-১৩ মোতাবেক আবেদন করতে হবে।

জাতীয় পরিচয়পত্রে রক্তের গ্রুপ কিভাবে যুক্ত করবো অথবা সংশোধন করবো? জাতীয় পরিচয়পত্রে রক্তের গ্রুপ লিপিবদ্ধ না হলে কিংবা ভুল প্রকাশ হলে তা সংশোধনের জন্য আপনার এলাকার সংশ্লিষ্ট নির্বাচন অফিসে রক্তের গ্রুপ সম্পর্কিত ডায়াগনোসিস রিপোর্ট দাখিল করে আবেদন জমা দিতে হবে।
বয়স বা জন্ম তারিখ ভুল উঠেছে, কিভাবে পরিবর্তন করবো?
জন্ম তারিখ বা বয়স পরিবর্তন বা সংশোধন জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধনের একটা জটিল প্রক্রিয়া। জন্ম তারিখ বা বয়স সংশোধনের আবেদনের সাথে উল্লেখিত দলিলাদি দাখিল করা আবশ্যক-

১. একাডেমিক সনদ (এসএসসি/এইচএসসি/ বা অন্যান্য)।
২. জন্ম নিবন্ধন সনদের কপি
৩. প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে সম্পাদিত ২০০ টাকা স্ট্যাম্পে জন্ম তারিখের ভুল সংক্রান্ত নোটারিকৃত হলফনামা।
৪. জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি।
৫. টিকা কার্ড এর কপি
৬. পাসপোর্ট থাকলে পাসপোর্টের কপি।

কতবার জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করা যায়?
একই তথ্য এক বারের বেশি সংশোধন করা যায় না। তবে, ঠিকানা, স্বামীর নাম, স্ত্রীর নাম এবং রক্তের গ্রুপ একাধিকবার সংশোধন করা যায়।
কিভাবে স্বাক্ষর পরিবর্তন করবো?
স্বাক্ষর পরিবর্তনের জন্য আপনার সর্বাধিক ব্যবহৃত স্বাক্ষরের নমুনাসহ আবেদন করবেন এবং নতুন করে বায়োমেট্রিক এনরোলমেন্ট করতে হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close