রাজনীতি

কোথাকার কোন পরীমণি: মির্জা ফখরুল

ঢাকাই সিনেমার আলোচিত নায়িকা পরীমনিকে নিয়ে ‘কটাক্ষ’ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। পরীমনির ইস্যু তুলে গণমাধ্যম ও হাইকোর্টেরও সমালোচনা করেছেন তিনি। শনিবার (০৪ সেপ্টেম্বর)

দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুরুল হক হলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমেদের ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সাবেক মন্ত্রী ও জাপার একাংশের চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল

হায়দারের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ফখরুল বলেন, মানুষের দৃষ্টি ফেরাতে নানা ঘটনার অবতারণা হচ্ছে। দৃষ্টি খালি এক ইস্যু থেকে অন্য

ইস্যুতে নিয়ে যাওয়া হয়, আপনারা দেখছেন আমাদের পত্র-পত্রিকাগুলোও ওই লাইনে চলে গেছে। যেইটা ইস্যু না- কোথাকার কোন পরীমনি, ওমুক মনি- এসব নিয়ে তারা ঝাঁপিয়ে পড়তেছে এবং ওটাকে বড় করে হেডলাইন করে..।
পরীমনিকে বারবার রিমান্ডে নেওয়া নিয়ে হাইকোর্টের অসন্তোষ

প্রকাশের প্রসঙ্গ তুলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, অন্তত একবার আমরা জানলাম হাইকোর্ট নিম্ন আদালতের কাছে জানতে চাইল, নিয়মের ব্যতিক্রম করে কেন এতবার রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু যখন আমাদেরকে রিমান্ডে নেওয়া হয় নিয়ম ব্যতিক্রম করে, যখন রাজনৈতিক নেতাদেরকে অ-ত্যা’চার করা হয় রিমান্ডের মধ্য দিয়ে,

সেই সম্পর্কে কিন্তু তারা কথা বলে না। তিনি বলেন, আমরা এখন যে অবস্থাটায় বাস করছি, এটা একটা ছদ্মবেশী বাকশাল। আমাদের সাংবাদিক ভাইরা কেউ নিজেরাই লেখেন না, সেলফ সেন্সরশিপ করছেন। কেন? যদি একটা শব্দ, একটা বাক্য যদি এদিক-ওদিক হয়, তাহলে আবার তাদেরকে ডিজিটাল সিকিউরিটি

অ্যাক্টে জেল এবং নন-বেইল, এই একটা অবস্থা। আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে ‘দেউলিয়া’ হয়ে পড়েছে মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “আওয়ামী লীগ কেন কবর নিয়ে কথা বলছে, আওয়ামী লীগ কেন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেওয়া নিয়ে কথা বলছে? কারণ ওদের আর কিছু নাই তো। দেউলিয়া হয়ে গেছে রাজনৈতিকভাবে। “এখন ইস্যু হচ্ছে টিকা।

এগুলো থেকে তারা মানুষের দৃষ্টি সরাতে চায়। এগুলো থেকে মানুষের দৃষ্টি সরিয়ে তারা এই সমস্ত ইস্যু তৈরি করছে।”
কোভিড টিকা সংগ্রহেও সরকার ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে বলে দাবি করেন ফখরুল। “৪ পারসেন্টও জোগাড় করে মানুষকে দিতে পারেননি এখনও।

আর স্বাস্থ্যমন্ত্রী তাকে জ্যোতিষবিদ্যা মন্ত্রী করা ভালো। কারণ প্রতিদিন বলছেন এই আসছে ১০ লাখ, এই আসছে ৫ লাখ। আগামী ডিসেম্বরে হবে। জ্যোতিষীর মতো কত কথা বলছেন।”

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close