রাজনীতি

যুক্তরাজ্যের কাছ থেকে এটা আশা করি না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মানবাধিকারের রিপোর্টে বাংলাদেশ সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্যে সরকার অসন্তোষ বলে জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, বাংলাদেশ যুক্তরাজ্য সরকারের কাছ থেকে এটা আশা করে না। শনিবার (২৮ আগস্ট)

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি। নেতিবাচক মন্তব্যের বিষয়ে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাবের সঙ্গে আলোচনা করবেন বলেও জানিয়েছেন এ কে আব্দুল

মোমেন। তিনি জানান, সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ হবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এর আগেও আমি বারবার এই বিষয়ে কথা বলেছি। আমি বলেছি তারা যদি সরকারের গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে চায় তা হলে বস্তুনিষ্ঠ হতে হবে। কান কথা শুনে ও মিডিয়া দেখে রিপোর্ট লেখা ঠিক না।

যুক্তরাজ্যের মতো পরিপক্ক সরকারের কাছ থেকে আমরা এটা আশা করি না। মন্ত্রী বলেন, অন্যান্য অনেক দেশ এ রকম কান কথা শুনে বিবৃতি তৈরি করে যা কোনও ম্যাচিউর দেশের কাছ থেকে আশা করা যায় না।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কিছুদিন আগে তাসখন্দে যুক্তরাজ্যের প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ হয়। তারা কোনও কারণ ছাড়াই বাংলাদেশের জন্য

রেড অ্যালার্ট দিয়ে রেখেছে। আমার থেকে বেশি লোক মারা গেছে ভারতে কিন্তু তাদের রেড অ্যালার্ট দেয় নাই। তিনি বলেন, কেউ বলে এর কারণ হচ্ছে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত কিন্তু আমি এটা বিশ্বাস করি না। আফগানিস্তান ইস্যুতে জানতে চাওয়া হলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেখেন, আমরা কয়েক সপ্তাহ আগে প্রাইভেটলি যারা ওখানে আছেন, তাদের বলেছিলাম,

আল্লাহর ওয়াস্তে আপনারা সেইফ জায়গায় চলে যান। অনেকেই এটা গ্রহণ করেছেন। কারণ আমাদের ধারণা ছিল যে, সমস্যা হতে পারে। যেহেতু আমাদের ওখানে দূতাবাস নাই, সুতরাং মোর ডিফিকাল্ট হবে। কেউ কেউ শুনেছেন। আমরা তখন ব্র্যাককে অ্যাপ্রোচ করেছিলাম। তাদের লোকগুলোকে মোটামুটি সেইফলি নিয়ে এসেছে। কিন্তু আফগানিস্তানের যে ১৬০ জন ছাত্র-ছাত্রী

আমাদের দেশে পড়ে, তারা এখন আসতে চাচ্ছে, তাদের দেশে প্রবলেম বলে আসতে চাচ্ছে। আসতে চাইলে আসুক, কিন্তু দে হ্যাভ টু মেক দেয়ার ওয়ে আউট। আমাদের তো ওখানে এমন কিছু নেই যে আমরা ওদের নিয়ে আসতে পারি। আমি শুনেছি, ওরা বাঙালি না। ওরা সবাই আফগান।

সো আই ডোন্টে নো…।
উজবেকিস্তানে আমাদের রাষ্ট্রদূত জানিয়েছেন, আফগানিস্তানে বাংলাদেশের ১৫ জন নিরাপদ আছেন। কিন্তু ভয়ে এয়ারপোর্টে যাচ্ছেন না। সো উই ডোন্ট নো। অবস্থার প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close