সারা বাংলাদেশ

৩ আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্টে যমজ সন্তান, সিজারে পাওয়া গেলো একটি

তিনবার আল্ট্রাসনোগ্রাম করার পর যম’জ সন্তানের বিষয়ে নি’শ্চিত হলেও প্র’সূ’তির সিজারিয়ান অ’পারেশ’নের পর একটি সন্তান পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপ’ক্ষ। এতে প্রসূতির পরিবারের পক্ষ

থেকে নবজাতক চু’রির অ’ভিযো’গ তো’লা হয়েছে। অন্যদিকে, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্টে ভু’ল তথ্য এসেছে। দুটি নয়, প্রসূতির গর্ভে পাওয়া গেছে একটি সন্তান। সাতক্ষীরা শহরের নিউ মার্কেট এলাকায় ডা. মাহাতাবউদ্দীন

মেমোরিয়াল হাসপাতালে শুক্রবার (২০ আগস্ট) দুপুর ২টার দিকে ওই প্রসূ’তি সন্তান জন্ম দেন। নবজাতকের বাবা কলারোয়া উপজেলার সোনাবাড়িয়া ইউনিয়নের রাজপুর গ্রামের বাসিন্দা তরিকুল ইসলাম জানান, তার স্ত্রী মৌসুমী খাতুনের গ’র্ভে সন্তান

আসার পর এ পর্যন্ত তিনবার আল্ট্রা’সনোগ্রাম করা হয়েছে। সব রিপো’র্টে গ’র্ভে যমজ ছেলে সন্তানের কথা বলা হয়েছে। রিপোর্টেও সেটি লেখা রয়েছে। তবে প্রসব বে’দনা শুরু হলে শুক্রবার দুপুর দেড়টার দিকে শহরের মাহাতাবউদ্দীন মেমোরিয়াল হাসপাতালে প্রসূ’তিকে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর হাসপাতাল

কর্তৃপক্ষও জানিয়েছে, গর্ভে যমজ সন্তান রয়েছে। এরপর সি’জারিয়ান অপা’রেশন করার পর একটি সন্তান দিয়েছে। আরেকটির হদিস নেই। তিনি অভি’যোগ করে বলেন, ‘একটি সন্তান চু’রি করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অথবা সি’জার করার সময় ছু’রির আঘা’তে মা’রা গেছে, সে কারণে এখন অ’স্বীকার করছে। এখন আমি কী করবো? পুলিশকে ঘটনাটি জানিয়েছি।’

মৌসুমী খাতুনের চাচা শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘এই ক্লিনিকে ভ’র্তি করার পরও বলেছে, যম’জ দুটি ছেলে সন্তান রয়েছে। সিজারে’র পর দিয়েছে একটি। পুলিশের জরুরি সেবা ৩৩৩-তে কল করেছিলাম। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তদ’ন্ত করেছে। তবে সন্তান উ’দ্ধার করতে পারেনি। শেষে পুলিশ বলেছে, আপনারা থানায় মা’মলা দিলে ‘আইন’গত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ডা. মাহাতাবউদ্দীন মেমোরিয়াল হাসপাতালের ব্যবস্থাপক শরিফুজ্জামান বিপুল বলেন, ‘ডা. লিপিকা বিশ্বাস সি’জার অ’পারেশ’ন করেছেন। হাসপাতাল থেকে বাচ্চা চু’রি’র কোনও ঘটনা ঘটেনি। আল্ট্রাসনোগ্রাম রি’পোর্ট ভুল ছিল। যমজ নয়, প্রসূতির গ’র্ভে একটি ছেলেসন্তান পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘প্রাথমিক তদ’ন্তে আমরা ধারণা করছি, আল্ট্রাসনোগ্রাম রিপোর্টটি ভু’ল ছিল। বাচ্চা’ চু’রির কোনও আ’লামত পাওয়া যায়নি। তবে অভি’যোগটি খতিয়ে দেখা হবে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close