আন্তর্জাতিক

ক্ষুধার্ত মানুষকে লকডাউনে রাখা যায় না: ইমরান খান

ক্ষুধার্ত মানুষকে লকডাউনে রাখা যায় না: ইমরান
আন্তর্জাতিক ডেস্ক- পাকিস্তানের বাণিজ্য কেন্দ্র করাচিসহ সিন্ধের দক্ষিণ অংশে লকডাউনের সমালোচনা করে দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, ‘ক্ষুধার্ত মানুষকে

এভাবে লকডাউনে রাখা যায় না’টেলিফোনে সরাসরি প্রশ্নোত্তরের এক অনুষ্ঠানে তিনি এই কথা বলেছেন। করোনার পূর্ববর্তী তিনটি ঢেউয়ের সময় সরকারকে সহযোগিতা করায় দেশের মানুষকে ধন্যবাদ জানিয়ে চলমান চতুর্থ ঢেউয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

কেন্দ্রীয় সরকারের ইচ্ছার বিরুদ্ধে সিন্ধ প্রদেশের সরকার আরোপিত লকডাউন প্রসঙ্গ তুলে ইমরান খান বলেন, খেটে খাওয়া মানুষের কথা বিবেচনা না করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
ইমরান খানের প্রশ্ন, ‘সিন্ধ সরকার লকডাউন চায়। এটা সঠিক

সিদ্ধান্ত এবং এতে ভাইরাসের বিস্তার কমবে। কিন্তু লকডাউনে কি অর্থনীতি বাঁচবে? এরমধ্যে রয়েছে ক্ষুধা। দিনমজুর ও শ্রমজীবী মানুষ লকডাউন চলাকালে কীভাবে জীবন নির্বাহ করবে?’
আচমকা লকডাউন আরোপে ‘ভারতে বিপর্যয়’ তৈরির উদাহরণ টেনে সিন্ধ সরকারের উদ্দেশে তিনি আরও বলেন, ‘আগে

আপনাদের কাছে এসব প্রশ্নের উত্তর থাকতে হবে। এসব প্রশ্নের উত্তর না পাওয়া পর্যন্ত কখনও লকডাউন করতে পারেন না।
পাকিস্তানের এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তাদের (ভারতীয়) সরকার জনসাধারণের জন্য কিছু না ভেবেই একবারে লকডাউন জারি করেছে। তারা কেবল আমাদের মতো উচ্চবিত্ত এবং অভিজাতদের কথা ভেবেছিল। কিন্তু আমরা তো এভাবে ভাবতে পারি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘সিন্ধ সরকারের জানা উচিত যে, যখন আপনি লকডাউন চাপিয়ে দিচ্ছেন তখন আপনি অনেক মানুষকে ক্ষুধার মুখে ঠেলে দিচ্ছেন। যদি তাদের খেতে দেওয়ার সামর্থ্য না থাকে, তবে আপনি ক্ষুধার্ত মানুষকে লকডাউনের অধীনে রাখতে পারবেন না। উল্লেখ্য, মহামারি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ

উদ্বেগজনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের দক্ষিণাঞ্চলে লকডাউন সংক্রান্ত বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে। এতে করে দেশটির বাণিজ্যিক রাজধানী করাচিসহ অন্যান্য নগর কেন্দ্রগুলো লকডাউন হয়ে গেছে শনিবার (৩১ জুলাই) থেকে শুরু হওয়া লকডাউন বিধিনিষেধ আগামী ৮ আগস্ট পর্যন্ত জারি থাকবে। যদিও স্থানীয় ব্যবসায়ী সম্প্রদায় ও দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার লকডাউনের এই সিদ্ধান্তের বিরোধী।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close