আবহা ভার্তা

পানিতে থৈ থৈ বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ-খেলার মাঠ

থই থই করছে পানি। বাতাসের ঝাঁপটায় ঢেউ খেলছে হাঁসের ছানা। না এটি পুকুর বা জলাশয় নয়। কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ১৭৪ নম্বর বরকামতা জাগরণী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ। রাস্তা থেকে নিচু ও পানি

নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় গত কয়েকমাস ধরে ডুবে আছে মাঠ ও শ্রেণি কক্ষ। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবুল হাশেম জানান, বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৮০ জন। তাদের খেলাধুলার জায়গা বলতে মাঠটিই সম্বল। শিক্ষার্থী ছাড়া আশপাশের মহল্লার

বাচ্চারাও এই মাঠে খেলতে আসে। বর্তমানে মাঠ ও শ্রেণি কক্ষ ব্যবহারের অনুপযোগী। একটু বৃষ্টি হলেই পানি জমে যায়। করোনায় স্কুল বন্ধ। স্কুল খুললে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান করা অসম্ভব। পানিতে শ্রেণি কক্ষের আসবাবপত্রও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, স্থানীয় আবদুল বারেক মাস্টারের দুই ছেলে শামীম ও ডালিম প্রায় ২০০ ফুট জায়গা ভরাট করায় পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে যায় ফলে এ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।
জানা গেছে, বরকামতা ১৭৪ নম্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি

১৯৯৫- ৯৬ সালে সাবেক অতিরিক্ত সচিব মো. সিদ্দিকুর রহমান প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিদ্যালয়টি এ এলাকায় শিক্ষাবিস্তারে ব্যাপক ভূমিকা রেখে আসছে। একাধিক অভিভাবক জানান, রাস্তা থেকে বিদ্যালয়টি নিচু হওয়ায় সামান্য বৃষ্টি হলে

পানি জমে যায়। দীর্ঘদিন জমে থাকা পানি পচে দুর্গন্ধ ছড়ায়। বিদ্যালয় খোলার পর শিক্ষার্থীদের এ বিদ্যালয়ে পাঠদান করা সম্ভব নয়। এ ছাড়াও মাঠে জমে থাকা কাদাপানির কারণে শিক্ষার্থীরা শরীরচর্চা ও জাতীয় সংগীত গাইতে পারে পারবে না।

এতে স্কুলের শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হবে। এ পরিস্থিতিতে দ্রুত স্কুল মাঠের জলাবদ্ধতা নিরসনের জোর দাবি জানান তারা। এ ব্যাপারে ইউএনও রাকিব হাসান বলেন, বিদ্যালয়ের সমস্যা নিয়ে লিখিতভাবে আবেদন করতে বলা হয়েছে। জলাবদ্ধতার সমস্যা দ্রুত সমাধান করা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close