জাতীয়

ক্ষমতা ভোগ-বিলাসের বিষয় না: প্রধানমন্ত্রী

সরকার গঠন করা বা ক্ষমতায় আসা ভোগ-বিলাসের বিষয় নয় মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এটা বিরাট দায়িত্ব
মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) পাবলিক সার্ভিস দিবস উদযাপন ও জনপ্রশাসন পদক প্রদান

অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অংশ নিয়ে তিনি এ গল্প বলেন। অনুষ্ঠানে ২০২০ সালে জাতীয় ও জেলা পর্যায়ে অবদান রাখায় ৯ এবং ২০২১ সালে ১৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে জনপ্রশাসন পদক দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে পদক তুলে দেন

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার গঠন করা বা ক্ষমতায় আসা এটা শুধু ভোগ-বিলাসের বিষয় না। আমি প্রধানমন্ত্রী হয়েছি বলে যে মহা কিছু হয়ে গেছি, তা না। এটা একটা বিরাট দায়িত্ব।

‘সেই সাথে আমার যারা সহকর্মী, বিশেষ করে সরকারি কর্মচারী, তাদেরও দায়িত্ব। কারণ, বাংলাদেশের জনগণ তারাই তো আপনাদের ভরণপোষণ, খাবার জোগান তারাই তো করেন; আমাদের সকলের জন্যই করেন। তাদের জন্য আমরা কতটুকু কী করতে পারলাম, সেটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় বিষয়। তাদের সার্বিক

উন্নয়নটাই হলো আমাদের সকলের দায়িত্ব, যে যখনই সরকারে আসুক। এটা যদি না হয় তাহলে কিন্তু একটা দেশ এগোতে পারে না।’ সরকারের কর্মকাণ্ড মাঠপর্যায়ে বাস্তবায়ন করায় জনপ্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ধন্যবাদ জানান সরকারপ্রধান। এসময় দেশের জনগণকে ব্যাপকভাবে ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেন, ইতোমধ্যে ভ্যাকসিন কেনা আমরা শুরু

করেছি। ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হয়েছে। ব্যাপকভাবে ভ্যাকসিন দিতে হবে। যাতে দেশের সকলেই সুরক্ষিত থাকে। সরকার প্রধান বলেন, ইতোমধ্যে আমি নির্দেশ দিয়েছি‑ পরিবারে যারা.. ড্রাইভার থেকে শুরু করে বাড়িতে যারা কাজ করে তাদের জন্য ভ্যাকসিন দিয়ে দেওয়া হয়। তাহলে সবাই সুরক্ষিত থাকতে পারবে। এর জন্য প্রয়োজনে যত টাকা লাগবে, যত ভ্যাকসিনের প্রয়োজন হবে

আমরা কিনব। ভবিষ্যতে আমরা বাংলাদেশে ভ্যাকসিন তৈরি করব। যাতে মানুষের কোন অসুবিধা না হয়। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তির যুগে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন আসবে। নতুন উদ্ভাবন হবে তার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। তাহলেই আমরা বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারব। প্রধানমন্ত্রী বলেন,

আজ গ্রাম পর্যায় পর্যন্ত দেশের মানুষ সেবা পাচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশের সুবিধা মানুষ ব্যাপকভাবে পাচ্ছে। আমরা দেশের মানুষকে যে সকল সহযোগিতা করছি তার সবকিছুই এখন ডিজিটাল পদ্ধতিতে হচ্ছে। এতে আমাদের কাজ যথাযথ হচ্ছে, সময় বাঁচছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close