হেফাজত ইসলাম

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বাবুনগরীর প্রথম বৈঠক, যা জানা গেল

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী গত মার্চে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট ‘সহিংসতা ও নাশকতা’র ঘটনায় দেশব্যাপী

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কয়েক শ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হয়েছেন। এ নিয়ে সরকারের প্রতিনিধি তথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে আগেও বৈঠক করেছেন হেফাজত ইসলামের শীর্ষ নেতারা। তবে এই প্রথম সোমবার রাতে

মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন সংগঠনটির আমীর আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। এ ছাড়া প্রথমবারের মতো বৈঠকে ছিলেন হেফাজতের প্রয়াত আমির শাহ আহমদ শফীর একান্ত সহকারী শফিউল আলম। তবে প্রায় দুই ঘণ্টার বৈঠক হলেও বেরিয়ে যাওয়ার সময় হেফাজতের নেতারা গণমাধ্যমের সঙ্গে কোনো কথা

বলেননি। গণমাধ্যমকর্মীরা কথা বলার চেষ্টা করলেও সংগঠনটির নেতারা গণমাধ্যমকে এড়িয়ে যান। এ কারণে বৈঠক সম্পর্কে তাদের মুখ থেকে সরাসরি কোনো তথ্য জানা যায়নি।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আমীর আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর বৈঠক
অন্যদিকে, সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানিয়েছে, এদিন

বৈঠকে সারাদেশে গ্রেপ্তার হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের মুক্তি চেয়েছেন সংগঠনের আমীর জুনায়েদ বাবুনগরী। এ ছাড়া করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আরোপিত কঠোর বিধিনিষেধ শেষে দেশের কওমি মাদরাসাগুলো খুলে দেওয়ার ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে কওমি মাদরাসাগুলোকে শিক্ষা

মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনের আওতায় আনা এবং মাদ্রাসার শিক্ষা কার্যক্রমের ব্যাপারে সমন্বিত নীতিমালা তৈরির উদ্যোগের বিষয়েও কথা বলেছেন হেফাজতের আমীর। বৈঠক সূত্রে আরো জানা যায়, হেফাজতের আমীর কওমি মাদরাসা খুলে দেওয়া এবং নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার না করার অনুরোধ জানালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন,

করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে মাদরাসা খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে সরকার। একই সঙ্গে নির্দোষ কাউকে গ্রেপ্তার করা হবে না বলেও আশ্বস্ত করেন তিনি। প্রসঙ্গত, সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ৮টার পর রাজধানীর ধানমন্ডিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় যান জুনায়েদ বাবুনগরী। এ সময় তার সঙ্গে সংগঠনটির মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম জিহাদিও ছিলেন। এর আগে হেফাজত নেতাদের সঙ্গে

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠকেও ছিলেন জিহাদি। অন্যদিকে, সোমবার প্রথমবারের মতো বৈঠকে অংশ নেন হেফাজতের প্রয়াত আমীর শাহ আহমদ শফীর একান্ত সহকারী শফিউল আলম। এর আগে বৈঠকে অংশ নিতে সোমবার চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় আসেন জুনায়েদ বাবুনগরী। এর পর রাজধানীর খিলগাঁওয়ের জামিয়া ইসলামিয়া মাখজানুল উলুম মাদরাসায় বিশ্রাম নেন তিনি।

মাদরাসাটির অধ্যক্ষ হেফাজতের মহাসচিব নুরুল ইসলাম জিহাদী। মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের আগে হেফাজতের আমীর ও মহাসচিব সরকারের একটি সংস্থার সঙ্গেও বৈঠক করেন বলে জানা যায়। বৈঠকের পর রাতেই হেফাজত আমীরের চট্টগ্রাম হাটহাজারী মাদরাসায় ফিরে যাওয়ার কথা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close