আন্তর্জাতিক

ক্ষমতা নিয়েই আইন :পুরুষদের দাড়ি রাখতে হবে, নারীরা একা বেরুতে পারবে না!

আফগান বাহিনীর কাছ থেকে মধ্যাঞ্চলীয় শহর গজনি জেলার নিয়ন্ত্রণ নিতে হামলা শুরু করেছে তালেবান। মঙ্গলবার রাজধানী কাবুলের সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ কান্দাহারের সংযোগ মহাসড়কে ভারী অস্ত্র-গোলাবারুদ নিয়ে

অবস্থান নিলে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয়। নতুন খবর হচ্ছে, নারীরা বাড়ি থেকে পুরুষ অভিভাবক ছাড়া একা বের হতে পারবেন না। পুরুষদেরও লম্বা দাড়ি রাখতেই হবে। উত্তর-পূর্ব আফগানিস্তানে তাকহার প্রদেশে এমন আইন জারি করেছে

তালেবান। এমনকি নারীদের বিয়ের জন্য পণ প্রথাও ফিরিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছে সংগঠনটি।
এক বিজ্ঞপ্তিতে তালেবান এসব নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বলে গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।বিষয়টি নিশ্চিত করে তাকহার

প্রদেশের সমাজকর্মী মেরাজউদ্দিন জানিয়েছেন, এই চর্চা এরই মধ্যে শুরু হয়ে গেছে। অবশ্য তালেবান এ ধরনের অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে।আফগানিস্তানে ৯০ দশকের তালেবান শাসন ব্যবস্থার কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। সে সময় চুরির জন্য

হাত কেটে দেওয়া হতো, পাথর নিক্ষেপ করে মানুষ হত্যা করা হতো, এমনকি নারীদের ওপর ছিল নানা রকম বিধিনিষেধ আফগানিস্তানে মার্কিন সেনা মোতায়েন হওয়ার আগে এসব আইন জারি করেছিল তালেবান। তখন দেশটিতে নারীদের চাকরি তো

দূরের কথা, কোনো পুরুষ আত্মীয় ছাড়া বাইরে বের হওয়াও নিষেধ ছিল। এমনকি এই নিয়ম না মানলে কঠোর শাস্তিও ভোগ করতে হতো।
২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম আবারও আকাশ ছোঁয়া!
কাঁচাবাজার এবং নিত্যপণ্যে লকডাউনের প্রভাব কিছুটা হলেও

পড়েছে। তবে পেঁয়াজের ক্ষেত্রে সেটা অস্বাভাবিক। গত ২৪ ঘণ্টায় খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি ১০ টাকা! পাইকারি বাজারে ৫-৭ টাকা বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে।
পেঁয়াজের দামের এমন উল্লম্ফনের কারণ হিসেবে লকডাউনকে সামনে আনছেন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, লকডাউনের কারণে

বাজারে প্রয়োজন অনুযায়ী পেঁয়াজ আসছে না। যতটুকু আসছে, তাতে পরিবহন খরচ পড়ছে আগের চেয়ে বেশি। ভারত থেকে যে পেঁয়াজ আসছে সেটাও বাজার পর্যন্ত আসতে স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি খরচ হচ্ছে। এসব কারণে দাম বেড়ে গেছে। বিক্রেতারা জানাচ্ছেন, লকডাউন উঠে গেলে দাম ঠিক হয়ে যাবে। ক্রেতারা বলছেন, ব্যবসায়ীরা সবসময় সুযোগের অপেক্ষায় থাকে।

লকডাউনের কারণে পরিবহন খরচ কিছুটা বেড়েছে, সেটা মেনে নেওয়া যায়। কিন্তু কেজিতে যদি ১ টাকা বেড়ে থাকে, তাহলে তারা দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে প্রায় ১০ টাকা। লকডাউন থাকায় বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা না বাড়িয়ে বেশি দামেই পণ্যটি কিনে নিচ্ছে সবাই। শনিবার (৩ জুলাই) রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, মানভেদে কেজিপ্রতি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায়। অথচ একদিন আগেও গতকাল শুক্রবার পণ্যটি বিক্রি

হয়েছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা দরে। খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, পাইকারি বাজারে দাম বাড়ায় তারাও পেঁয়াজের বাড়িয়ে দিতে বাধ্য হচ্ছেন। লকডাউনের কারণে সামনের কয়েকদিনে দাম আরও বাড়তে পারে বলে মনে করছেন এসব খুচরা ব্যবসায়ীরা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close