অন্যান্য

হাঁসের খা’মার গড়ে জাকিরের মাসে আয় ২০ লাখ টাকা

মাত্র দেড় হাজার টাকায় ২০০টি হাঁসের বাচ্চা নিয়ে খা’মা’র গড়ে তোলেন চুয়াডাঙ্গার আ’ল’ম’ডা’ঙ্গা উপজে’লার কুলচারা গ্রামের জাকির হোসেন। সময়টি ছিল ২০০২ সাল জাকির হেসেনের গল্পের শুরুটা স’ফ’ল’তার না থাকলেও

বছর কয়েক যেতে না যেতেই ঘুড়ে যায় ভা’গ্যের চাকা। ২০০টি হাঁসের বাচ্চার মধ্যে বি’ভি’ন্ন রোগ বালাই, প্র’তি’কূ’ল পরিবেশে মা’রা যায় ৭৪ টি হাঁসের বাচ্চা মাত্র ১২৬টি হাঁসের বাচ্চা নিয়েই প্র’তি’কূ’ল পরিবেশের সাথে ল’ড়া’ই চালিয়ে যায় জাকির

হোসেন। আজ ১৭বছর পর সেই খা’মা’র টি জে’লার সবচেয়ে বড় খা’মা’রে রূপ নিয়েছে। স’ফ’ল খা’মা’রি হিসেবে দেশরত্ন ব’ঙ্গ’ক’ন্যা মাননীয় প্রধান’মন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকেও পেয়েছেন ব’ঙ্গ’ব’ন্ধু কৃষি পুরষ্কার। জাকির জানান- প্রতিদিন

৮হাজারেরও বেশি ডিম সংগ্রহ করেন খা’মা’র থেকে। যা দিয়ে চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, মে’হে’র’পু’র সহ আশপাশ সকল জে’লার ডিমের চা’হি’দা মেটানো হয়। প্রতিটি ডিম ১০টাকা দরে প্রতিদিন ৮০হাজার এবং প্রতি মাসে ২৪লাখ টাকা আয় হয় তার এই খা’মা’র থেকে।

এছাড়াও মাংসের হাঁস বি’ক্রি করে প্রতি মাসে আয় হয় আরো ৪লাখ টাকার মতো। এখান থেকে প্রতি মাসে হাঁসের খা’বা’র, ওষুধ, কর্মচারীদের বে’ত’নসহ আনুষঙ্গিক ৭ থেকে ৮লাখ টাকার মতো খ’র’চ গুনতে হলেও জমা থাকে ২০লাখ টাকার মতো যার পু’রো’টাই লাভের অংশ। যা শুনতে স্বপ্নের মতো হলেও বা’স্ত’ব।
খা’মা’রের কর্মী শাহারা বেগম জানান, খা’মা’রের প্রতিটি সেড

থেকে ডিম তো’লে’ন তিনি। বে’ত’নের টাকায় স’ন্তা’নদের লেখাপড়াসহ সংসারও চলে। খা’মা’রে অনেক এলাকা থেকে নারীরা কাজ করতে এসেছেন। জাকির হোসেন জানান, শুরুটা খুব স’হ’জ ছিল না। ধৈর্য ও কঠোর প’রি’শ্র’মের ফল আজকের এই খা’মা’র। তবে স্বল্প পুঁজি নিয়েও হাঁসের খা’মা’র করা যেতে পারে। তথ্য

সূত্রঃ গো নিউজ ২৪

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close