আন্তর্জাতিক

ক’ঠিন সময়ে চীন ভালো ব’ন্ধুর মতো পাশে থেকেছে!

একবার কাশ্মীর স’ম’স্যা সমাধান হয়ে গেলে প’র’মা’ণু অ’স্ত্র ভাণ্ডারের আর কোনও প্রয়োজনীয়তাই থাকবে না, এমন কথাই শোনা গেল পাক প্রধান’মন্ত্রী ইমরান খানের মুখে। ২২ জুন সাংহাই কো-অ’পা’রে’শ’ন

অর্গানাইজেশনের বৈ’ঠ’কে যোগ
দিচ্ছেন ভা’র’তের জাতীয় নিরাপত্তা উ’প’দে’ষ্টা অজিত দোভাল। কাশ্মীরের ম্যাপ নিয়ে বি’রো’ধের জেরে গত বছর দোভাল বৈ’ঠ’ক ছেড়ে বেরিয়ে আসার পর এই প্রথম মুখোমুখি হবেন

ভা’র’ত ও পা’কি’স্তা’নের জাতীয় নিরাপত্তা উ’প’দে’ষ্টারা।
ঠিক তার আগেই সংবাদ মা’ধ্য’মের এক সাক্ষাৎকারে ফের একবার কাশ্মীর প্র’স’ঙ্গ তুলে আনলেন পাক প্রধান’মন্ত্রী। যেখান কাশ্মীর স’ম’স্যা সমাধানের জন্য আ’মে’রি’কার সাহায্যও

চাইলেন তিনি! ভা’র’তের তরফে অবশ্য কোনও প্র’তি’ক্রি’য়া মেলেনি। ইমরানের দাবি, তিনি শুরু থেকেই প’র’মা’ণু অ’স্ত্র ব্যবহারের বিপক্ষে। আর সেই কারণেই ভা’র’ত ও পা’কি’স্তা’ন দুই প’র’মা’ণু শক্তিধর দেশ হওয়া সত্ত্বেও তাদের সীমান্ত স’ম’স্যা যু’দ্ধ অবধি গড়ায়নি। ইমরানের স্পষ্ট ব’ক্ত’ব্য,

‘কাশ্মীর নিয়ে যে মু’হূ’র্তে বোঝাপড়া হয়ে যাবে, দুই প্রতিবেশী দেশ ভদ্রসভ্য মানুষের মতো বাঁচবে। প’র’মা’ণু অ’স্ত্রের আর প্রয়োজনই হবে না।’বর্তমান মা’র্কি’ন প্রেসিডেন্টের স’ঙ্গে অ’ব’শ্য একবারও কথা হয়নি ইমরানের, এ কথা নিজেই জানিয়েছেন পাক প্রধান’মন্ত্রী। তাঁর দাবি, ‘বাইডেনের স’ঙ্গে কথা

হলে আমি কাশ্মীর প্র’স’ঙ্গ উত্থাপন করব। রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদের প্র’স্তা’ব অনুযায়ী, এটি একটি বি’ত’র্কি’ত ভূখণ্ড। কাশ্মীরের মানুষের নিজেদের ভবিষ্যৎ স’ম্প’র্কে সি’দ্ধা’ন্ত নেওয়ার জন্য গণভোট দেওয়ার অ’ধি’কা’র রয়েছে,

কিন্তু সেই গণভোটের আ’য়ো’জ’নই করা হয়নি। ফলে, স’ম’স্যা রয়েই গিয়েছে। আ’মে’রি’কানদের যদি সমাধানের ইচ্ছে থাকে, তাহলে কাশ্মীর স’ম’স্যা মিটতে পারে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close