আবহা ভার্তা

ঘূর্ণিঝড় ইয়াস ফুঁসে উঠেছে বঙ্গোপসাগর, ডুবছে উপকূল (ছবিসহ)

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে গত রাত থেকেই দেশের উপকূলীয় অঞ্চলগুলোতে বৈরী আবহাওয়া বিরাজ করছে। উত্তাল হয়ে উঠেছে বঙ্গোপসাগরসহ উপকূলীয় এলাকার নদ-নদী। স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে কয়েক ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

উপকূল সংলগ্ন বিভিন্ন স্থানে ঘরবাড়ি-রাস্তাঘাটে পানি উঠছে। পানিবন্দি হয়ে পড়ছে হাজার হাজার মানুষ। ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াসের’প্রভাবে জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে কয়েক ফুট বেশি উচ্চতায় উঠে উপকূলে আছড়ে পড়ছে। বাগেরহাটে ইয়াসের

প্রভাবে মঙ্গলবার সকাল থেকে আকাশ মেঘাচ্ছন্নসহ গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি পড়ছে। সকাল থেকেই শরণখোলার বলেশ্বর, মোরেলগঞ্জের পানগুছি, মোংলার পশুর, বাগেরহাটের ভৈরব, দড়াটানাসহ সব নদীর পানি স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে এক থেকে দেড় ফুট বেড়েছে। এরই মধ্যে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে মোরেলগঞ্জ

উপজেলার পৌর এলাকাসহ সদর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম। মোরেলগঞ্জ উপজেলার পানগুছি নদীর তীরে থাকা শানকিভাঙ্গা ও বদনী ভাঙ্গা গ্রামে বেড়িবাঁধ না থাকায় আতঙ্কিত বাসিন্দারা। ঝড়ের প্রভাব শুরুর আগেই তারা আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। মোরেলগঞ্জ সদরের গাবতলা গ্রামের সালেহা বেগম বলেন, ‘সকাল

থাইক্কা গাঙ্গের পানি বাড়তেছে। সহাল ১০টার দিকে পানিতে মোগো বাড়ি-ঘর তলাই গেছে।’একই গ্রামের জামাল ফজলু হাওলাদার বলেন, ‘জোয়ারে গাঙ্গের পানি যেভাবে বারতিছে, তাকে দুপুরে আসতে আসতে মোগা ভাইসা যামু।’ বাগেরহাটে স্বাভাবিকের চেয়ে কয়েক ফুট বেশি উচ্চতায় উঠেছে পানি বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বিশ্বজিৎ বৌদ্ধ বলেন, ‘পূর্ণিমার ও

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কারণে উপকূলীয় এলাকায় নদী-খালের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। দুপুর নাগাদ এ পানি আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। তবে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। ভাটিতে এ পানি আবার নেমে যাবে।’ সাগর উত্তাল হয়ে ওঠায় এবং ঝড়ো বাতাস বয়ে যাওয়ায় সুন্দরবনের বিভিন্ন সাইক্লোন শেল্টারসহ কোস্টগার্ডের ক্যাম্পগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে বনবিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। নতুন করে সিগনাল না বাড়ায় এবং আবহওয়া এখনও বেশি খারাপ না

হওয়ায় মোংলা বন্দরে অবস্থানরত ১১টি বিদেশি জাহাজের পণ্য ওঠানামা ও পরিবহনের কাজ স্বাভাবিক রয়েছে। বন্দরের হারবার মাস্টার কমান্ডার শেখ ফখরউদ্দীন বলেন, সিগনাল ৪ নম্বর না হওয়া পর্যন্ত বন্দরের কার্যক্রম স্বাভাবিক থাকবে। ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’র প্রভাবে গতকাল রাত থেকে দ্বীপজেলা ভোলায় বৈরী আবহাওয়া বিরাজ করছে। উত্তাল হয়ে উঠেছে উপকূলীয় এলাকার নদ-নদী। স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে তিন থেকে চার ফুট পানি বৃদ্ধি

পেয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে ভোলার সর্ব দক্ষিণের চরফ্যাশন উপজেলার বিচ্ছিন্ন চর ইউনিয়ন ঢালচর ও চরকুকরি মুকরি ইউনিয়ন চার থেকে পাঁচ ফুট পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এতে করে দুই ইউনিয়নের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ঢালচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল সালাম হাওলাদার জানান, সকাল ৯টার দিকে হঠাৎ করেই পানি বাড়তে শুরু করে। এতে

করে ওই চরটিতে থাকা অন্তত ৭ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়ে। মানুষের বাড়িঘরে পানি উঠে ঘরের আসবাবপত্রসহ খাবার-দাবার নষ্ট হয়ে গেছে। এছাড়া জোয়ারের পানিতে রাস্তাসহ চলাচলের পথ ডুবে গেছে। রাতে পানি আরো বৃদ্ধি পেতে পারে এমন আশঙ্কায় ঝুঁকিপূর্ণ বাসিন্দাদের কোস্ট ট্রাষ্টের অফিস ও পুলিশ ফাঁড়ির ভবনে নিরাপদ আশ্রয়ে নেয়া হবে বলেও জানান তিনি। অপরদিকে কুকরি মুকরি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল

হাশেম মহাজন জানান, সকাল থেকে তার ইউনিয়নের কুকরি মুকরি ও চর পাতিলা ৪ থেকে ৫ ফুট পানিতে প্লাবিত হয়েছে। সেখানে প্রায় ৮ হাজার লোক পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বিকেলে এসব বাসিন্দাদের আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া হবে বলেও জানান তিনি। এদিকে নদীতে থাকা মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার তীরবর্তী এলাকায় নিরাপদে চলে আসতে শুরু করেছে। ঘূর্ণিঝড় থেকে উপকূলের বাসিন্দাদের সতর্ক করতে মাইকিং করছে কোস্টগার্ডসহ সেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো।

ভোলা জেলা প্রশাসক মো. তৌফিক-ই-লাহী চৌধুরী পানিবন্দির বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঝুঁকিপূর্ণ চরগুলোতে আটকে পড়া বাসিন্দাদের উদ্ধারে ইতিমধ্যে কোস্টগার্ড ও জেলা প্রশাসনের দুটি ইউনিট ঢালচরের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ মোকাবেলায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সবধরনের গ্রহণ করা হয়েছে। ভোলার উপকূলের ৪০টি দ্বীপচরকে ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করে সেখান থেকে ৩ লাখ ১৮ হাজার বাসিন্দাকে সরিয়ে আনার প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা প্রশাসন। প্রস্তুত রাখা হয়েছে জেলার ৭০৯ টি আশ্রয়

কেন্দ্র । জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খোলা হয়েছে ৮টি কন্ট্রোল রুম। পাশাপাশি ৭৬টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। পানি বৃদ্ধি পেয়ে ডুবছে বাজারের দোনানপাট অন্যদিকে সিপিপি’র ১৩ হাজার সেচ্ছাসেবী ছাড়াও রেডক্রিসেন্ট এবং স্কাউটস কর্মীদের প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এ ছাড়াও প্রতিবন্ধী, নারী ও শিশুদের নিরাপত্তায়ও আলাদা টিম গঠন করা হবে। প্রস্তুত থাকবে ফায়ার সার্ভিসের ১৪ টিম ও স্বাস্থ্য বিভাগের ২০০ কমিউনিটি ক্লিনিক। ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের গতিবেগ অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। পটুয়াখালী উপকূলে থেমে থেমে হালকা ও মাঝারি বৃষ্টিপাত হচ্ছে। জেলার কলাপাড়া, রাঙ্গাবালী ও গলাচিপা এলাকায় স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩ থেকে ৪ ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া

ইউনিয়নের ভাংগা বেড়িবাঁধদিয়ে রাবনাবাদ নদীর জোয়ারের পানি প্রবেশ করে ১০ গ্রাম পুরোপুরি প্লাবিত হয়েছে। একই অবস্থা ধানখালী ইউনিয়নের দেবপুর গ্রামে। এছাড়া মহিপুরের নিজামপুর গ্রামের বেড়িবাঁধ টপকে চার গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ওইসব গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। রাঙ্গাবালী উপজেলার সদর ইউনিয়নের চরকাসেম এলাকা , চরমোন্তাজ ইউনিয়নের মিটার বাজার এলাকা, ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের কাউখালি এলাকা, বড়বাইসদিয়া ইউনিয়নের হালিম চার এলাকা, চালিতাবুনিয়া ইউনিয়নের বিবিরহাওলা, গরুভাঙ্গা, মরাজাঙ্গি, গোলবুনিয়া, চিনাবুনিয়া ও চারলতা এলাকা পানিতে পুরাপুরি প্লাবিত হয়েছে।
উপকূলবর্তী স্থানীয়রা জানায়, ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সাগরপাড়ে বসবাসরত অস্থায়ী বাসিন্দারা নিরাপদ আশ্রয়ে যাবার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। এছাড়া দুর্যোগকালীন সময়ে মানুষের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় সিপিপি, রেড ক্রিসিন্ট, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল

ডিফেন্সসহ ফায়ার সার্ভিসের কমিউনিটি ভলান্টিয়ার টিমের সদস্যরা প্রস্ততি নিয়েছে। পটুয়াখালীতে অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে নদ-নদীর পানি আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল ৬টায় পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৮০ কি.মি. দক্ষিণ দক্ষিণ পশ্চিমে অবস্থান করছিল। প্রবল ঘূর্ণিঝড়টি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর-উত্তর পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে বুধবার ভোর নাগাদ উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় পোঁছতে পারে। প্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কি.মি. এর মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৮৯ কি.মি; যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১১৭ কি.মি. পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে। পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ২ (দুই) নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close