আন্তর্জাতিক

জাতীয় ঐক্য গড়ছে ফিলিস্তিন

আবার জেগে উঠেছে ফিলিস্তিনিরা। সব ভেদাভেদ ভুলে জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলছে দখলদার ইসরাইলের চলমান আগ্রাসনের বিরুদ্ধে।ঐক্যের নিদর্শন হিসাবে জর্ডান নদী থেকে ভূমধ্যসাগরের মধ্যবর্তী পুরো এলাকায় সাধারণ

ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে। এতে একদিকে যেমন যোগ দিয়েছে ফিলিস্তিনের পূর্ব জেরুজালেম ও পশ্চিম তীরের অধিবাসীরা। তেমনই যোগ দিয়েছে ইসরাইলে বসবাসকারী লাখো ফিলিস্তিনি। শুধু তাই নয়, গত কয়েক দশকের মধ্যে এই প্রথম ইসরাইলের নির্বিচার বিমান হামলা ও

হত্যাযজ্ঞের বিরুদ্ধে একসঙ্গে রুখে দেওয়ার প্রত্যয় জানিয়েছে সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস ও ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ফাতাহ। সংহতি ও সহযোগিতা নিয়ে এসেছে বিশ্বের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে থাকা প্রবাসী ফিলিস্তিনিরা।মিডিল ইস্ট আই’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজায় বিমান হামলার এক সপ্তাহের মাথায় রোববার ইসরাইলের অভ্যন্তরে আরব রাজনৈতিক দলগুলোর সমন্বয়কারী সংগঠন দ্য

আরব ফলো-আপ কমিটি এই ধর্মঘটের ডাক দেয়।এই ধর্মঘটের নাম দেওয়া হয়েছে ‘কারামেহ স্ট্রাইক’ তথা মর্যাদার ধর্মঘট। ইসরাইলে বসবাসকারী ১৬ লাখসহ অন্তত ৩০ লাখ ফিলিস্তিনি এতে অংশ নিচ্ছে।
এরই মধ্যে লাখো ফিলিস্তিনি ইসরাইলি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে এসেছে। আলজাজিরা জানিয়েছে, গাজা উপত্যকায় ইসরাইলের বিরামহীন বোমা হামলার প্রতিবাদে অধিকৃত গাজা, অধিকৃত পশ্চিম তীর ও ইসরাইলি শহরগুলোতে এই ধর্মঘট

অব্যাহত রয়েছে।মঙ্গলবার সকাল থেকেই পুরো অঞ্চলের সব দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। গাজা পরিচালনাকারী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস ও ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষের প্রধান দল ফাতাহ উভয় গ্রুপই এই ধর্মঘট সমর্থন করেছে। ফিলিস্তিনিরা সব ধরনের অর্থনৈতিক কার্যক্রম থেকে বিরত রয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোও বন্ধ রয়েছে। ওয়েস্ট ব্যাংক বা পশ্চিম তীর ও গাজা বর্তমান ফিলিস্তিনের প্রধান দুটি শহর। ওয়েস্ট ব্যাংক নিয়ন্ত্রণ করে ফাতাহ মুভমেন্ট যার প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। আর যে গাজা ভূখণ্ড নিয়ন্ত্রণ করে হামাস।সারা বিশ্ব মূলত ফাতাহকে ফিলিস্তিনিদের বৈধ কর্তৃপক্ষ বলে মনে করে থাকে। অন্যদিকে হামাসকে মনে করে জঙ্গি সংগঠন। একই ফিলিস্তিনের শাসক হলেও ফাতাহ আর হামাসের সম্পর্ক মূলত সাপে-নেউলে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ‘এটা নজিরবিহীন। কয়েক দশকের মধ্যে এই প্রথম দল-মত-নির্বিশেষে সব ফিলিস্তিনি এ ধরনের সাধারণ ধর্মঘটে অংশ নিয়েছে।’ কোনো কোনো বিশ্লেষক একে তৃতীয় ইন্তিফাদা তথা অভ্যুত্থান হিসাবে দেখছে। ইসরাইলের নিন্দা ইস্যুতে এবারই প্রথম আরব বিশ্বে বিভক্তি : গাজার অধিকৃত অঞ্চলে ইসরাইলি আগ্রাসনের প্রতিবাদে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রতিবাদ বিক্ষোভ অব্যাহত থাকলেও এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, মরক্কো এবং সুদান। আর এ দেশগুলোর নীরবতাকেই আরব বিশ্বে ভাঙনের প্রথম ধাপ হিসাবে উল্লেখ করেছে দ্য গার্ডিয়ান। ইসরাইল বনাম

হামাস লড়াই বন্ধে কী করা উচিত এ নিয়ে আরব বিশ্বে অনৈক্যের আভাস পেয়েছেন আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকরা। যেখানে তুরস্ক ও ইরানের মতো মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ কয়েকটি দেশ গাজায় ইসরাইলের নৃশংস বর্বরতার নিন্দা জানিয়ে তা বন্ধের আহ্বান জানাচ্ছে, সেখানে এবারই প্রথম উপরোক্ত দেশগুলো এ বিষয়ে সম্পূর্ণ নীরব রয়েছে। যদিও এর আগে তাদের ভূমিকা এমন ছিল না। বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, ট্রাম্প প্রশাসনের করা ইসরাইলের সঙ্গে শান্তি প্রতিষ্ঠা নীতি এবং তথাকথিত আব্রাহাম অ্যাকর্ড চুক্তি অমান্য হওয়ার ভয়েই নিশ্চুপ রয়েছে আলোচ্য দেশগুলো। আর এ কারণেই সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, মরক্কো এবং সুদানের জনগণের মধ্যে সাম্প্রতিক ইসরাইলি আগ্রাসনের প্রতিবাদ শুরু হলেও দেশগুলো কৌশলে তা স্তিমিত করে রেখেছে। যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দিয়েছে মিসর, জর্ডান ও ফ্রান্স : ইসরাইল ও হামাসের মধ্যকার বিবদমান অবস্থাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার একটি ভিডিও কনফারেন্সে মিলিত হয়েছিলেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল

ম্যাত্রেঁদ্ধা, তার মিসরীয় সহযোগী আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি এবং জর্ডানের বাদশা দ্বিতীয় আব্দুল্লাহ। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, এ বিষয়ে ত্রিপক্ষীয় আলোচনায় তারা ইসরাইল ও হামাসের কাছে যুদ্ধবিরতি আশা করেন এবং দ্বিপক্ষীয় সংলাপের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের আহ্বান জানান।সিসি আফ্রিকার শীর্ষ সম্মেলন থেকে এবং আব্দুল্লাহ জর্ডান থেকে ম্যাত্রেঁদ্ধা আয়োজিত এ কনফারেন্সে যোগ দেন। ফরাসি প্রেসিডেন্ট আশা করেন শিগগিরই বিবদমান দুই পক্ষ যুদ্ধবিরতির আহ্বানে সাড়া দেবে এবং দ্বন্দ্ব বাড়ানো রোধে ভূমিকা রাখবে। এএফপি। গাজার ধ্বংসস্তূপ থেকে ৭ ঘণ্টা পর উদ্ধার ফিলিস্তিনি শিশু : পরিবারের কেউ বেঁচে নেই ভেবে তার বাবাও মরতে চেয়েছিলেন। ভেবেছিলেন, ‘নিষ্ঠুর এ পৃথিবীতে বেঁচে থেকে কী লাভ!’ কিন্তু ছয় বছরের মেয়ে সুজি সাত ঘণ্টা পর ধ্বংসস্তূপ থেকে উঠে আসায় তিনি ফিরে পেয়েছেন বাঁচার আনন্দ।রোববার গাজার সেই এলাকাটি তখন ইসরাইল থেকে উড়ে আসা রকেটের আঘাতে বারবার সশব্দে কাঁপছে। রিয়াদ এশকুন্তানা আর তার স্ত্রী নিজেদের সন্তানদের একটা ঘরে রেখে এলেন।

তাদের মনে হয়েছিল সেই ঘরটিই সবচেয়ে নিরাপদ, রকেটের আওতার সবচেয়ে বাইরে। অন্য ভাইবোনদের সঙ্গে সুজিও ছিল সেখানে। কিন্তু এত করেও সন্তানদের নিরাপত্তা দিতে পারেননি রিয়াদ এশকুন্তানা। রকেটের আঘাতে প্রথমে দুটি দেওয়াল, তারপর ছাদও ধসে পড়ে।ও ঘর থেকে স্পষ্ট শোনা যায় ছেলে জাইনের চিৎকার, ‘আব্বা! আব্বা!’ সুজিও ডাকে। কিন্তু মাঝে দেওয়াল ভেঙে পড়ে ধ্বংসস্তূপের আড়ালে থাকা সন্তানদের উদ্ধার করতে যেতে পারেননি রিয়াদ। ভবনটি ধসে পড়ার পর প্রতিবেশীরা এসে ইট-সুরকির নিচ থেকে চেনা মানুষগুলোকে উদ্ধারের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। রিয়াদ খুব চেষ্টা করেও নিজের বেঁচে থাকার খবরটা তাদের জানাতে পারেননি।প্রায় ত্রিশ মিনিট পর প্রতিবেশীদের উদ্যোগেই পুলিশ আসে, উদ্ধারকর্মীরা আসে। ততক্ষণে কিছুটা শক্তি ফিরে পেয়েছেন রিয়াদ। ফলে তার কাতর আর্তনাদ শুনতে পান উদ্ধারকর্মীরা। বেঁচে যান রিয়াদ? উদ্ধার করে শিফা

হাসপাতালে নেওয়া হয় রিয়াদকে। সেখানে তখন স্বজনদের ভিড়। এক শিশুকে আনতে দেখে নারীরা সেদিকে ছুটে যান, ‘ইয়াহিয়া নাকি? ইয়াহিয়া!’ চার বছরের ইয়াহিয়া তখন আর বেঁচে নেই। শুনে দুজন নারী সেখানেই অজ্ঞান? তারপর জাইনের খবর, মেয়ে ডানার খবর, স্ত্রীর খবরও জেনে রিয়াদের মনে হলো আর কেউ বেঁচে নেই। মনে হলো, সবাইকে হারিয়ে একা একা বেঁচে থাকার কী দরকার! বাড়ির সবাইকে চিনতেন বলে প্রতিবেশীরা জানতেন এখনও সুজি আছে ইট-সুরকির নিচে। তাই ভবন ধসে পড়ার সাত ঘণ্টা পরও চলছিল তাকে উদ্ধারের চেষ্টা। উদ্ধারকর্মীরা ধংসস্তূপের ফাঁকফোকরে মুখ রেখে ‘আল্লাহু আকবর’ বলছেন। এখানে ওখানে খুঁজে খুঁজে হঠাৎ এক জায়গা থেকে শোনা গেল শিশুর দুর্বল কণ্ঠের মৃদু চিৎকার, ‘আল্লাহু আকবর!’ উদ্ধার করে সুজিকেও নেওয়া হয় শিফা হাসপাতালে। রিয়াদের পাশের বেডেই রাখা হয় তাকে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close