মানবাতা ও সমাজ

রমজান উপলক্ষে কেনা দামে চাল বিক্রি করছেন ঝালকাঠির শাহাদাত!

পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে সাধারণ মানুষের জন্য প্রতি বস্তা চাল পাইকারি দামের চেয়েও অন্তত ৫০-৬০ টাকা কমে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ী মো. শাহাদাত ফকির। তিনি ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার তরুণ চাল ব্যবসায়ী করোনায়

মৃত ব্যক্তিদের গোসল ও দাফন দিয়ে আলোচনায় রয়েছে শাহাদাতের প্রতিষ্ঠিত ‘শাবাব ফাউন্ডেশন’। আট বছর শরীরে ক্যানসার নিয়ে বয়ে বেড়ান। অথচ করোনা পরিস্থিতিতে মানুষের পাশ থেকে দূরে থাকেননি তিনি।

ফুটপাতে পেঁয়াজ, আলু বিক্রির মধ্য দিয়ে ব্যবসায়িক যাত্রা শুরু হয়েছিল শাহাদাতের। ১৯৮৭ সালে জন্ম তার। আট ভাই-বোনের মধ্যে তিনি সপ্তম। বাবাকে হারিয়েছেন চার বছর বয়সে।
ছোটো থেকেই বড় ভাইয়ের সঙ্গে দোকানে বসেছেন। এর মধ্যে পড়াশোনা চালিয়ে যান। ২০০২ সালে এসএসসি পরীক্ষায় ‘এ’

গ্রেড পান। এরপর ভর্তি হন বরিশাল পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটে। পরিবারে তার আরও দুই ভাই ছিলেন। তাদের একজন হঠাৎ কঠিন রোগে আক্রান্ত হন। ভাইয়ের মৃত্যুশয্যার পাশে থেকে যতটা সাহায্য করা যায়; শাহাদাত ততটা করার জন্য পাঠ চুকিয়ে ফেলেন। সবাইকে বলেছিলেন, আমার ভাই মরে যাচ্ছে আর আমি

পড়াশোনা করব এখানে? বাজারের আড়তে বসলেও পরিবারের কিছুটা সহযোগিতা হবে। অসুস্থ ভাইয়ের মৃত্যুর পর অপর ভাইয়ের দোকানে কর্মচারীর মতো ছিলেন শাহাদাত। এর মধ্যেও মা-বোনের খরচ চালাতেন। একপর্যায়ে নলছিটি খাসমহল বাজার এলাকায় নর্দমার পাশে রাস্তায় আলু ও পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেন। বর্ষায় পানিতে বহুবার আলু ও পেঁয়াজের ক্ষতি হয়েছে তার।

বিয়ে করেছেন প্রায় ১০ বছর আগে। তিন সন্তানের বাবা এখন শাহাদাত। ২০১৩ সালে থাইরয়েড ক্যানসার ধরা পরে তার। এ পর্যন্ত ভারতের চেন্নাইতে কেমো-থেরাপিসহ চিকিৎসা নিয়েছেন কয়েকবার। মৃত্যুকে তখনই কাছ থেকে দেখেছেন।
গত দুই বছর আগে তার মা মারা যান। মায়ের মৃত্যুর আগ থেকেই তার চালের ব্যবসা সাফল্যের সঙ্গে এগিয়ে চলছে।

তার মায়ের নামে একটি সেবামূলক ফাউন্ডেশন করেছেন। গত বছর রমজানে ব্যক্তি উদ্যোগে প্রায় ১০০ রেহাল দিয়েছিলেন মানুষকে। এবারও প্রায় ১০০ রেহাল প্রস্তুত রেখেছেন। করোনা মহামারি থেকে মুক্তি পেতে নির্ধারিত দোয়া হাজার হাজার কপি ছাপিয়ে লিফলেট ও স্টিকার মানুষকে দিয়েছেন। শাহাদাত বলেন, মৃত্যুকে অনেকবার দেখেছি। তাই আমার চাহিদা সীমিত।

টাকার প্রতি আগ্রহ কম। আল্লাহ রিজিক যা রেখেছেন; তা আমি ভোগ করে যাব। শাহাদাতকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) প্রায়ই চিকিৎসা ফলোআপে যেতে হয়। জীবনের বাকি সময় ভালো পথে থাকার জন্য আল্লাহর কাছে সাহায্য চান। জীবনের গল্পগুলো বলতে গিয়ে বারবার কেঁদে ফেলেছেন। অনুরোধ করেছেন তিনি যে, ভালো কাজগুলো

করেছেন; তা যেন প্রচার না হয়।মসজিদের ইমামসহ তিনজনের উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন ‘শাবাব ফাউন্ডেশন’। করোনায় মৃতদের গোসল দেওয়াসহ দাফনের জন্য ফাউন্ডেশনে সদস্য আছেন ২৫ জন। প্রথম ধাপের ১২ জন কখনো সক্ষম না হলে পরবর্তী ১৩ জনের টিম গোসল ও দাফন দেবেন। এ পর্যন্ত ১৭ জনকে গোসল ও দাফন দিয়েছেন তারা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close