হেফাজত ইসলাম

৩১৭ বছরের ‘পুরনো মসজিদ’ উ’দ্বোধন করলেন জুনায়েদ বাবুনগরী

চট্টগ্রামের হা’টহাজারী থানার প্রা’ণ’কে’ন্দ্র কামাল পাড়ায় অ’ব’স্থি’ত ৩১৭ বছরের পুরনো ঐতিহাসিক খা’ন’সা’মা মসজিদ এর সং’স্কা’র কাজ শেষে জুম’আর খুতবাহ প্র’দা’নে’র মাধ্যমে মসজিদটি উ’দ্বো’ধ’ন করেছেন

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ এর আ’মী’র শায়খুল হা’দী’স আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আজ শুক্রবার (৯ এ’প্রি’ল) জুম’আর খুতবাহর মা’ধ্য’মে ঐতিহাসিক এ মসজিদটি তিনি উ’দ্বো’ধ’ন করেন।খৎবা পূর্ববর্তী ব’য়া’নে আল্লামা বাবুনগরী

বলেন, দু’নি’য়া’য় আল্লাহর ম’নো’নী’ত কিছু ঘর আছে, যেখানে বান্দা মহান আল্লাহর কু’দ’র’তি পায়ে সিজদাবনত হয়; আল্লাহর প’বি’ত্র’তা ঘোষণা করে। সেখানে প্র’বে’শ করলে মুমিনের মন আল্লাহর ভালোবাসার সৌ’র’ভে প্র’শা’ন্ত হয়ে যায়।সে’খা’নে মুমিনরা মহান আল্লাহর সঙ্গে ক’থো’প’ক’থ’নে লিপ্ত

হয়। সেটি পৃ’থি’বী’র শ্রেষ্ঠ স্থান। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে ব’র্ণি’ত, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সা’ল্লা’ম বলেছেন, ‘আল্লাহর কাছে স’ব’চে’য়ে প্রিয় জায়গা হলো মসজিদ আর স’ব’চে’য়ে নি’কৃ’ষ্ট জায়গা হলো বা’জা’র।তিনি বলেন, মসজিদ হলো

মু’স’লি’ম সমাজের মূ’ল’কে’ন্দ্র। এ কারণে রাসুল সা’ল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সা’ল্লা’ম হি’জ’র’তে’র প্রথম দিনই মসজিদ নি’র্মা’ণে’র কাজে আত্ম’নিয়োগ করেছেন।মদিনায় হি’জ’র’তে’র সময় যাত্রাবিরতিকালে তিনি কুবা না’ম’ক স্থানে ইসলামের প্রথম মসজিদ নি’র্মা’ণ করেন। পরে মদিনায় পৌঁ’ছে তিনি মসজিদ-ই-নববী স্থা’প’ন করেন।এবং সেখান থেকেই ইসলামের জ্যো’তি বি’শ্ব’ব্যা’পী ছড়িয়ে দেন। মসজিদ নি’র্মা’ণ
ও রক্ষণাবেক্ষণকারীদের মহান আল্লাহ ভী’ষ’ণ প’ছ’ন্দ করেন। পবিত্র কুরআনে ই’র’শা’দ হয়েছে, ‘তারাই তো আল্লাহর

মসজিদের আ’বা’দ করবে, যারা ঈমান আনে আল্লাহ ও শেষ দি’নে’র প্রতি, সালাত কা’য়ে’ম করে, জাকাত দেয় এবং আল্লাহ ছাড়া অন্য কা’উ’কে ভয় করে না। অ’ত’এ’ব আশা করা যায়, তারা হবে সৎপথপ্রাপ্তদের অ’ন্ত’র্ভু’ক্ত।হাদিস শরিফে ই’র’শা’দ হয়েছে,যে ব্যক্তি আল্লাহর স’ন্তু’ষ্টি’র জন্য মসজিদ
নি’র্মা’ণ করবে, মহান আল্লাহ তার জন্য জান্নাতে অ’নু’রূ’প ঘর তৈরি করে দেবেন।আল্লামা বাবুনগরী বলেন, মসজিদ নি’র্মা’ণ এমন একটি পুণ্যময় কাজ, যার স’ও’য়া’ব মৃত্যুর পরও

অ’ব্যা’হ’ত থাকে। হাদীস শরীফে ই’র’শা’দ হয়েছে, ‘সাত ধ’র’নে’র আমলের প্র’তি’দা’ন মৃত্যুর পর কবরেও জারি থাকে। ১. যে ব্যক্তি কা’উ’কে দ্বিনি ইলম শিক্ষা দেবে। ২. যে নদী প্র’বা’হি’ত করতে সহ’যোগি’তা করবে। ৩. অথবা
কূপ খ’ন’ন করবে। ৪. অথবা গাছ রো’প’ণ করবে। ৫. অথবা মসজিদ নি’র্মা’ণ করবে। ৬. অথবা কোরআন বি’ত’র’ণ করবে। ৭. অথবা সু’স’ন্তা’ন রেখে যা’বে যে তার মৃত্যুর পর

তার জন্য দো’য়া করবে।আমীরে হেফাজত বলেন, আমি মনে করি মসজিদ নি’র্মা’ণ অত্যন্ত স’ও’য়া’বে’র কাজ। আল্লাহর প্রিয় হওয়ার অ’ন্য’ত’ম মাধ্যম। তবে আমাদের উ’চি’ত হবে একমাত্র আল্লাহর স’ন্তু’ষ্টি’র আশায় মসজিদ নি’র্মা’ণ করা। মসজিদ নিয়ে অহংকার অ’হ’মি’কা’য় লি’প্ত হওয়া যাবে না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close